কাপ্তাই লেক । কাপ্তাই ভ্রমণ । কোথায় রাত্রি যাপন । কোথায় খাবেন সহ ইত্যাদি

রাঙ্গামাটি জেলায় একটি উপজেলা কাপ্তাই-এ আপনাকে স্বাগতম। কাপ্তাই ভ্রমণ হোক আনন্দের সাথে।

পরিচিতি- কাপ্তাই

বাংলাদেশের চট্টগ্রাম বিভাগের পার্বত্য চট্টগ্রামের রাঙ্গামাটি জেলার একটি উপজেলা কাপ্তাই। যা রাঙ্গামাটি সদর থেকে প্রায় ২৭ কি.মি দূরে অবস্থিত। যার উত্তরে কাউখালী উপজেলা ও রাঙ্গামাটি সদর উপজেলা, পূর্বে রাঙ্গামাটি সদর উপজেলা ও বিলাইছড়ি উপজেলা, দক্ষিণে রাজস্থলী উপজেলা এবং পশ্চিমে চট্টগ্রাম জেলার রাঙ্গুনিয়া উপজেলা। কাপ্তই উপজেলা নামকরণে কত্থয় এবং কিয়ং শব্দদ্বয়ের প্রভাব রয়েছে বলে অনেকের ধারণা। কত্থয় অর্থ কোমর আর কিয়ং অর্থ খাল। এই উপজেলায় রয়েছে ৪টি ইউনিয়ন, ৯টি মৌজা ও ১৪৪টি গ্রাম নিয়ে গঠিত। কাপ্তাই মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে কর্ণফুলি নদী এবং কাপ্তাই হ্রদ। কাপ্তাই এর অর্থনীতির প্রধান উৎস কৃষি, মৎস্যসম্পদ, বনজ সম্পদ, রেয়নশিল্প ও বিভিন্ন শিল্পকারখানা এর অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে। বাংলাদেশ প্রধান জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র এবং সর্ববৃহৎ কাগজের কল কর্ণফুলী পেপার মিলস, ওয়াজ্ঞা টি এসেস্ট, কাঠ প্রক্রিয়াজাতকরণ কারখানা ও বাংলাদেশ টিম্বার এই উপজেলায় অবস্থিত।



যেভাবে যাবেন-  কাপ্তাই লেক

আপনি যে এলাকা থেকে ‍কাপ্তাই আসতে চাচ্ছেন। সেই এলাকার নাম এবং যেখানে যাবেন (কাপ্তাই) সিলেক্ট করে আমাদের ওয়েবসাইটের হোম পেইজে সার্চ করুন। আমাদের ওয়েবসাইট (কেমনে যাবো ডট কম)-এ পাবেন, বাস কাউন্টার লোকেশন এবং ফোন নাম্বার, বাসের ভাড়া, বাসের ধরণ (এসি / নন-এসি) এবং সক্ষিপ্ত ইতিহাস।

দর্শনীয় স্থান সমূহ- কাপ্তাই

আকর্ষনীয় দর্শনীয় স্থান সমূহের মধ্যে রয়েছে-

কাপ্তাই পানি বিদ্যুৎ কেন্দ্র-

কর্ণফুলী পানি বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি পানি শক্তি দ্বারা পরিচালিত। চট্টগ্রাম হতে রাঙ্গামাটির এই দর্শনীয় স্থান প্রায় ৫০ কি.মি দূরত্ব। ১৬টি জল কপাট যুক্ত ৭৪৫ ফুট দৈর্ঘ্য একটি জল নির্গমন পথ বা স্পিলওয়ে রাখা হয়। প্রতি সেকেন্ড পানি নির্গমন ক্ষমতা ৫,২৫,০০০ কিউসেক ফুট।

কাপ্তাই লেক

কাপ্তাই হ্রদ বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রাম রাঙ্গামাটি জেলায় কাপ্তাই উপজেলায় অবস্থিত। এটি একটি কৃত্রিম হৃদ। কর্ণফুলি পানি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য ১৯৫৬ সালে কর্ণফুলি নদীর উপর কাপ্তাই বাঁধ নির্মাণ করা হলে রাঙামাটি জেলার ৫৪ হাজার একর কৃষি জমি ডুমে যায় যেটি এ হৃদের সৃষ্টি হয়।



কর্ণফুলী পেপার মিলস লিমিটেড-

এটি কাগজের মণ্ড ও কাগজ উৎপাদনকারী শিল্প প্রতিষ্ঠান। এটি বাংলাদেশ সর্ববৃহৎ কাগজ উৎপাদনকারী কোম্পানি। এটি অবস্থিত কাপ্তাই উপজেলায়।

জাতীয় উদ্যান-

বাংলাদেশের রাঙ্গামাটি জেলার কাপ্তাই উপজেলায় অবস্থিত ৫,৪৬৪ হেক্টর জায়গা জুড়ে বাংলাদেশ বন ও পরিবেশ অধিদপ্তর। যেখানে রয়েছে হরিণ , হাতি, বনবিড়াল, মেঘলা চিতা, বানর, উল্লুক প্রভৃত। বিভিন্ন প্রজাতির বেশ কিছু পাখির সন্ধান পাওয়া যায়। উদ্যানে রয়েছে দুইটি রেষ্ট হাউজ।

অন্যান্য দর্শনীয় স্থানঃ

  • কাপ্তাই বাঁধ। 
  • কর্নফূলী পানিবিদ্যুৎ কেন্দ্র। 
  • নেভীক্যাম্প পিকনিক স্পট। 
  • জুম রেস্তোলা পিকনিক স্পট। 
  • ওয়াগ্গাছড়া টি।
  • চিৎমরম বৌদ্ধ মন্দির, ইত্যাদি।

যেখানে রাত্রিযাপন- কাপ্তাই লেক

  • ৩০০ টাকার রুম থেকে ভাল মানের রুম ভাড়া পাবেন। তন্মধ্যে বনফুল বিশ্রামাগার, বিএফআইডিসি রেষ্ট হাউজ, উপজেলা পরিষদ রেষ্ট হাউজ, জুম রেস্তোরা, কে.পিিএম অতিথি ভবন, বনশ্রী পর্যটন কমপ্লেক্স ইত্যাদি ইত্যাদি।
  • রুম বুকিং করতে পারেন – বুকিং রুম।

যেখানে খাবেন– কাপ্তাই লেক

  • কাপ্তাই-এর খাবার? ———> এই শহরে বিখ্যাত মাছ আর ভাত।
  • এই শহরে দু’কদম হাটলেই  বিভিন্ন রেষ্টুরেন্ট, ক্যাফে, হোটেলে খাবার জুটে।

পছন্দের কেনাকাটা 

  • এখানে রয়েছে হাজি লাল মিয়া স্টোর, সোনিয়া ক্লোথিং স্টোর ইত্যাদি শপিং মল।
  • এই শহরে কেনকাটা হোক আনন্দের সাথে।

কোথায় গাড়ি পাব? কাউন্টার কোথায়? গাড়ি না পেলে কী করবো?  রাতে কী গাড়ি পাব? থাকার জায়গা পাব? রেস্টুরেন্ট খোলা থাকবে?

  • এই অঞ্চলে যে প্রান্তে আসবেন না কেন? কিংবা যেখানে থাকেন না কেন? আপনি খুব সহজেই আপনার গন্তব্যে পৌঁছাতে পারবেন। সব স্টেশনে আপনি কাউন্টার পাবেন। প্রতিটা ষ্টেশনে বিভিন্ন বাস কাউন্টার রয়েছে। তাদের সাথে যোগাযোগ করলে আপনার গন্তব্যের ঠিকানা খুঁজে নিতে পারবেন।
  • বাস স্ট্যান্ড ২৪ ঘণ্টা যাতায়াত ব্যবস্থা খোলা থাকে। আপনি নিচের দিকে স্ক্রল করলে বাসের ঠিকানা পেয়ে যাবেন।
  • প্রতিটা স্টেশনে, অলি-গলিতে আপনার থাকার ব্যবস্থার য়েছে। উপরে লিংকে প্রবেশ করে রুম বুক করতে পারেন।




বাংলাদেশের জনপ্রিয় দর্শনীয় স্থানসমূহের তথ্য (কাউন্টার লোকেশন ও ফোন নাম্বার, ভাড়া, বাসের ধরণ (এসি / নন-এসি) এবং এরিয়ার পরিচিতি, যেখানে থাকবেন এবং খাবেন) পেতে এই লিংকে ক্লিক করুন।