বরিশাল থেকে রাজশাহী

পরিচিতি-

রাজশাহী বিভাগীয় প্রধান শহর। রাজশাহী পদ্মা নদীর তীরে অবস্থিত। তার আকর্ষণীয় রেশমীবস্ত্রের জন্য রেশমনগরী নামে ডাকা হয়। নামকরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য রাজশাহী-কে “শিক্ষানগরী” নামেও ডাকা হয়। রাজশাহী সুপ্রাচীন ঐতিহ্য মণ্ডিত একটি শহর। অনেক আগে থেকে এই শহরটি প্রাচীন বাংলায় পরিচিত ছিল। এটি ছিল প্রাচীন বাংলার পুন্ড্র সাম্রাজ্যের অংশ। বিখ্যাত সেন বংশের রাজা বিজয় সেনের সময়ের রাজধানী বর্তমান রাজশাহী শহর থেকে মাত্র ৯ কি.মি দূরে অবস্থিত ছিল। মধ্যযুগে বর্তমান রাজশাহী পরিচিত ছিল রামপুর বোয়ালিয়া নামে। এর সূত্র ধরে এখনও রাজশাহী শহরের একটি থানার নাম বোয়ালিয়া। এখন প্রায় ১৫টি সফটওয়্যার ফার্ম আছে। এখানে দক্ষ জনবল তৈরির জন্য প্রায় ১০টি ট্রেনিং সেন্টার আছে যা দিনে দিনে বাড়ছে। এখানে বড় দুইটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় এবং কিছু প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় থাকায় আইটির লোকবলের কোন অভাব হয় না। রাজশাহী মহানগর রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন যা “রাসিক” নামে পরিচিত। রাজশাহী মহানগরকে ৩০টি ওয়ার্ডে ভাগ করা হয়েছে। রাজশাহীতে রয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং রাজশাহী মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়।



যেভাবে যাবেন-  (রাজশাহী যাবো)

  • কাউন্টারে যোগাযোগ করতে নিচে স্ক্রল করলে কাউন্টারের তথ্য পেয়ে যাবেন

দর্শনীয় স্থান-

  • আপনার ভ্রমণ তৃষ্ণা মেটাতে এখানে রয়েছে অনেক প্রাচীন স্থাপনা এবং আকর্ষণীয় নিদর্শন।
  • আকর্ষনীয়  দর্শনীয় স্থান সমূহের মধ্যে রয়েছে 

সাফিনা পার্ক, রাজশাহীঃ

প্রায় ৪০ বিঘা জায়গায় উপর ২০১২ সালে ব্যক্তিগত উদ্যোগে গড়ে তোলায় হয়েছে সাফিনা পার্ক। উপজেলার একমাত্র এই বিনোদন কেন্দ্রটি প্রায় ২ বছর বন্ধ থাকার পর ২০১৮ সালে পুনরায় চালু করা হয়। নতুন বিনোদন আয়োজনে সাজানো সাফিনা পার্কটি সব বয়সী দর্শনার্থীদের কাছে চিত্তবিনোদন ও পিকপিক স্পট হিসেবে বর্তমানে বেশ জনপ্রিয় অর্জন করেছে। সাফিনা পার্ক রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার দ্বিগ্রাম খেজুরতলায় অবস্থিত। দাগাড়ী থেকে সাফিনা পার্কের দূরত্ব ৯ কি.মি।




রাজশাহী শহরে সকল দর্শনীয় স্থানের সমূহের বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

  • রাজশাহীর খাবার?
  • রাজশাহী  কালাইরুটি আর ভর্তা, তালাইমারী সহ মোটামোমুটি সব জায়গাতেই পাবেন, সাহেব বাজারের মরিচ চা, মালটা চা, লেবু চা, কাটাখালীতে গরুর কালাভুনা, নওহাটার কালাভুনা, মুরগী রোস্ট, সাহেব বাজারে নবরুপের মিস্টি, তালাইমারীর বট পরোটা, বিদ্যুৎ এ শিক কাবাব, সুখীর রান্না ঘরে লুচি, আলুর দম, নিউমার্কেটের পুরি, বার্গার ইত্যাদি।

বাংলাদেশের অন্যতম প্রাচীন ও  ঐতিহ্যবাহী মহানগরী রাজশাহী জেলায়  এবং বাংলাদেশের প্রাচীনদের বিভিন্ন স্থাপনা, ঐতিহ্য খাবার এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থাপত্য   শহরে আপনাকে আবারও আমন্ত্রণ।

বরিশাল টু রাজশাহী গিয়ে কোথায় গাড়ি পাব? কাউন্টার কোথায়? গাড়ি না পেলে কী করবো?  রাতে কী গাড়ি পাব? থাকার জায়গা পাব? রেস্টুরেন্ট খোলা থাকবে? ইত্যাদি তথ্য এখানে রয়েছে। ক্লিক করুন

* বরিশাল টু রাজশাহী স্থল পথে সরাসরি নন স্টপ বাসে করে যাওয়া যায়। বাসের মধ্যে এসি/নন এসি উভয় ধরণের বাসের সু-ব্যবস্থা রয়েছে।

লক্ষ্য করুন, নিম্নে আপনি সকল বাস এবং বাস সংশ্লিষ্ট সকল তথ্য যেমন ভাড়া, বাস কাউন্টার, কাউন্টারের নাম্বার ইত্যাদি সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন এবং তাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারবেন। যদি কাউন্টারে যাওয়ার সময় না থাকে, চিন্তিত হবার কোন কারণ নাই, তাৎক্ষনিক বা অগ্রিম সব ধরনের বাসের টিকেট আমরা বুকিং দিয়ে থাকি।

নন এসি বাস

বাসের নাম

ভাড়া 

বিস্তারিত 

তুহিন পরিবহন

৫৫০ টাকা

গোল্ডেন লাইন পরিবহন

৬০০ টাকা

এসি বাস

বাসের নাম

ভাড়া 

বিস্তারিত 

পরার্মশঃ আপনি যে বাসে করে যাওয়ার সিদ্বান্ত নিয়েছেন ঐ বাস সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিন। হয়রানির সম্মুখীন হলে বা কোন অভিযোগ থাকলে তাদের জরুরী মোবাইল নাম্বারে জানান। অথবা আমাদের নিজস্ব ফেইসবুক গ্রুপপেইজ রয়েছে, যেখানে আপনারা আপনাদের মতামত জানাতে পারেন। যে বাসে করে আপনি ভ্রমণে যাচ্ছেন, সে বাস সম্পর্কে লিখুন আমাদের ফেইসবুক গ্রুপে, আপনার একটি লেখা কতৃপক্ষকে যাত্রী সেবার মান বাড়াতে সাহায্য করবে। এবং আমাদের ওয়েব সাইটের নিয়মিত আপডেট পেতে ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন। আমাদের মেইল করতে পাররেন info@kemnejabo.com। ধন্যবাদ ।